আপনি কি রক্তের গ্রুপের কিছু বিস্ময়কর তথ্য জানেন?

মানবদেহের একটি অপরিহার্য উপাদান হচ্ছে রক্ত। সবার রক্তই লাল কিন্তু সবার রক্তের গ্রুপ এক নয়, একেক জনের রক্তের গ্রুপ একেক রকম। লোহিত রক্তকণিকার বংশগত ভাবে প্রাপ্ত অ্যান্টিজেনিক পদার্থের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতির উপর ভিত্তি করে রক্তের রক্ত গ্রুপ বা রক্তের ধরন শ্রেণীবিভাগ হয়। এর উপর ভিত্তি করে কার রক্ত কাকে দান করা যাবে তা নির্ভর করে। চলুন জেনে নেই রক্তের গ্রুপ নিয়ে কিছু চমকপ্রদ তথ্য :

১। পৃথিবী জুড়ে মানুষের শরীরে প্রায় ২৯টি ব্লাড গ্রুপ রয়েছে। ২৯টি ব্লাড গ্রুপে মোট ৬০০রও বেশী অ্যান্টিজেন আছে। তবে এই ৬০০টির অনেকই খুব দুষ্প্রাপ্য বা কোনো বিশেষ জাতির বাইরে দেখা যায় না। তবে প্রধান প্রুপ ৪টি।

২। অনেক গর্ভবতী মহিলাদের ভ্রূণ তাদের নিজেদের থেকে আলাদা একটি একটি রক্তের গ্রুপ বহন করে এবং মা, ভ্রূণের RBC সমূহের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি গঠন করতে পারেন।

৩। রক্ত দান করার সময় গ্রহীতার রক্তে দাতার রক্ত মেশবার সময় গ্রুপ গ্রহনযোগ্য হবে না যদি গ্রহীতার রক্তরসে অবস্থিত অ্যান্টিবডি দাতার কোষের উপরস্থ অ্যান্টিজেনকে চিনতে পারে, পারলে গ্রহীতার অ্যান্টিবডির আক্রমণে দাতার রক্তকোষগুলি তাল পাকিয়ে জমাট বেঁধে যাবে বা ফেটে নষ্ট হয়ে যাবে।

৪। কোনো নীরোগ ব্যক্তির নিজের রক্তকোষে যে অ্যান্টিজেন থাকে তার বিরুদ্ধে অ্যান্টীবডি তৈরি হয় না।

৫। ‘এবি’ রক্ত গ্রুপধারী ব্যক্তির লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে এ এবং বি উভয় প্রকার অ্যান্টিজেন থাকে। এছাড়া রক্তরসে এ বা বি অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে কোন অ্যান্টিজেন থাকে না। তাই এবি রক্তগ্রুপধারী কোন ব্যক্তি যেকোন কারও থেকে রক্তগ্রহণ করতে পারে। তাদের বিশ্বগ্রহীতা বলা হয়।

৬। ‘এ’ রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তির লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে এ অ্যান্টিজেন থাকে। এছাড়া রক্তরসে বি অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে আইজিএম (Igm) অ্যান্টিবডি থাকে। তাই এ রক্তগ্রুপধারী কোন ব্যক্তি শুধুমাত্র এ বা ও গ্রুপের রক্তই গ্রহণ করতে পারে এবং এ বা এবি রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তিদের রক্ত দিতে পারবে।

৭। ‘বি’ রক্ত গ্রুপধারী ব্যক্তির লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে বি অ্যান্টিজেন থাকে। এছাড়া রক্তরসে এ অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে আইজিএম অ্যান্টিবডি থাকে। তাই বি রক্তগ্রুপধারী কোন ব্যক্তি শুধুমাত্র বি বা ও গ্রুপের রক্তই গ্রহণ করতে পারে এবং বি বা এবি রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তিদের রক্ত দিতে পারবে।

৮। ‘ও’ রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তির লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে এ বা বি কোন অ্যান্টিজেনই থাকে না। তাদের রক্তরস এ অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে আইজিএম এবং বি অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে আইজিএম অ্যান্টিবডি ধারণ করে। তাই ও রক্তগ্রুপধারী কোন ব্যক্তি শুধুমাত্র কোন ও গ্রুপধারী ব্যক্তির কাছ থেকেই রক্তগ্রহণ করতে পারবে।

তবে তারা যে কোন রক্ত গ্রুপধারী ব্যক্তিকেই রক্ত দিতে পারবে। যদি হাসপাতালের কোন রোগীর দ্রুত রক্তের প্রয়োজন হয় এবং যদি রক্ত প্রক্রিয়াজাত করতে মারাত্মক দেরি হয়ে যায়, তবে ও নেগেটিভ রক্ত দেয়া যেতে পারে। তাদেরকে বলা হয় বিশ্বদাতা।

 

মতামত

comments

Post Author: admin