মৃত ব্যক্তির পুরুষাঙ্গ অন্যের দেহে প্রতিস্থাপন।

মৃত ব্যক্তির দেহ থেকে এবার পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপনের খবর মিলেছে। যুক্তরাষ্ট্রে প্রথমবারের মতো এক সেনাবাহিনী সদস্য এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে যাচ্ছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

জানা গেছে,  যুক্তরাষ্ট্রের  এক সেনা  সদস্য আফগানিস্তানে মাইন বিস্ফোরণে আহত হন। শরীরে নিম্ন অংশ মাইনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ওই সেনা সদস্য ভবিষ্যত পিতা হতে পারবেন না। এমন ধারণা মিথ্যা প্রমাণ করতে তার পুরষাঙ্গ প্রতিস্থাপনের দায়িত্ব কাধে তুলে নেয় যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিন্স মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসকরা।  যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এ ধরনের অস্ত্রোপচার এই প্রথম। এর আগে গোটা বিশ্বে এমন অস্ত্রোপচার দু`বার হয়েছিলো।

২০০৬ সালে চীনে পুরুষাঙ্গ প্রতিস্থাপন সফল না হলেও ২০১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার ডাক্তাররা প্রথমবারের মতো সাফল্য পেয়েছেন। আর সে ধারাবাহিকতায় আমেরিকাতে এই অস্ত্রোপচার পদ্ধতি শুরু হতে চলেছে। যেটার সাফল্য পেলে ৬০ জন সেনাসদস্যের জীবনে উন্মোচিত হবে এক নতুন দিগন্ত।

তবে এই প্রতিস্থাপন প্রক্রিয়া অন্যান্য অঙ্গের মতো সহজতর নয়। কিছুটা জটিল। সদ্য মারা গেছেন এমন ব্যক্তির দেহ থেকে প্রথমে পুরুষাঙ্গ সংগ্রহ করতে হবে। তারপর সেটি দেহে প্রতিস্থাপিত করতে হবে। অস্ত্রোপচার যদি সফল হয়, তবে মূত্র ত্যাগে অসুবিধা হবে না। এমনকি অনুভূতি ফিরে এলে যৌনসঙ্গমেও থাকবে না কোনো প্রতিবন্ধকতা।

মতামত

comments

Post Author: admin