কেন এই বাংলা সিনেমা নিয়ে আপত্তি জানাচ্ছে হিন্দু জাগরণ মঞ্চ?

সিনেমার চরিত্রের নাম ‘‌রাম’‌, ‘‌সীতা’‌ হওয়ায় আপত্তি জানাল হিন্দু জাগরণ মঞ্চ। দাবি জানিয়েছে ছবিটি যেন মুক্তি না পায়। এ নিয়ে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি এবং সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন (‌সিবিএফসি)‌–এর চেয়ারপার্সন প্রসূন যোশিকে চিঠি দিয়েছে তারা। আপত্তিপত্র দিয়েছে সেন্সর বোর্ডের কলকাতা শাখায়। এর আগে পদ্মাবতী সিনেমা নিয়ে আপত্তি তুলেছিল এই মঞ্চ। যে বাংলা চলচ্চিত্রটি নিয়ে হিন্দু জাগরণ মঞ্চ আপত্তি জানিয়েছে সেই ‘‌রঙবেরঙের কড়ি’‌ ৪টি ছোট গল্পের কোলাজ। অর্থ আর মানুষের সম্পর্কের টানাপোড়েন নিয়ে গল্পগুলি গাঁথা হয়েছে। তারই একটি গল্পের চরিত্রের নাম ‘‌রাম’‌ আর ‘‌সীতা’। আদিবাসী দুই যুবক–যুবতীর প্রেম আর বিচ্ছেদ নিয়ে গল্পটি এগিয়ে চলেছে। যেহেতু গল্পের চরিত্রের নাম রাম, সীতা আর সেখানে প্রেম, বিচ্ছেদ দেখানো হয়েছে তাই আপত্তি তুলেছে হিন্দু জাগরণ মঞ্চ। তাদের দাবি এই সিনেমাটিকে সেন্সর বোর্ডের অনুমতি দেওয়া চলবে না। নিষিদ্ধ করা হোক। ‘‌রঙবেরঙের কড়ি’–র লেখক, পরিচালক রঞ্জন ঘোষ জানিয়েছেন, সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, চিরঞ্জিত, সোহম চক্রবর্তী, অরুণিমা ঘোষ, ঋত্বিক চক্রবর্তী, খরাজ মুখোপাধ্যায়, অর্জুন চক্রবর্তী প্রমুখ। ক্রিয়েটিভ কনসালটেন্ট অপর্ণা সেন। যে গল্পটি নিয়ে অভিযোগ তোলা হচ্ছে সেই গল্পের সঙ্গে ‘‌রামায়ণ’‌ কিংবা রাম, সীতার সঙ্গে কোনও যোগই নেই। স্বতন্ত্র একটা গল্প, আদিবাসী চরিত্র নিয়ে। আদিবাসী গ্রামের যুবক–যুবতীকে নিয়ে। আমাদের দেশে বহু মানুষের নামই দেব–দেবীর নামে হয়ে থাকে। তাছাড়া ছবিটি তো সেন্সর শো–ও এখনও হয়নি। তারা দেখেই উঠতে পারেনি। ছবিটি শুধু দুবাইয়ে ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে মার্কেটে দেখানো হয়েছে। আর দেখানো হয়েছিল গোয়ায় আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে এনএফডিসি–র প্যাভিলিয়নে। তাহলে এত হইচই করে চাপ তৈরি করা হচ্ছে কেন? এরপর কী তাহলে সিনেমা করা বন্ধ করে দিতে হবে?‌‌

মতামত

comments

Post Author: admin