জানেন কি সৌদিআরব সর্ম্পকে ১০ অবাক করা তথ্য ।

তেল সমৃদ্ধ আরব দেশ সৌদি আরব । শুধু তেলও নয় বেশ কিছু বিষয়ের কারনে সৌদি আরব বিখ্যাত। এসব কারনে সৌদি আরবকে বলা হয় মধ্যপ্রাচ্যের পাওয়ার হাউস। আর সেই সোদি আরব সর্ম্পকে গুরুত্বপূর্ণ ১০টি তথ্য দেওয়া হলো।

১। সৌদি আরব বাংলাদেশের তুলনায় ১৪.৫ গুন বড়। কিন্তু বাংলাদেশের জনসংখ্যা তাদের জনসংখ্যার ৬ গুন বেশি। বাংলাদেশের জনসংখ্যা প্রায় ১৬ কোটি হলেও সৌদি আরবে জনসংখ্যা মাত্র ২ কোটি ৭৩ লাখ ।

২। সৌদি আরবে ২০১২ সালে ৩ মিলিয়নের বেশি মানুষ হজ্ব পালন করতে আসেন। এর বিশাল সংখ্যা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মোট সংখ্যা থেকেও বেশি।

৩। সৌদি আরবে মৃত্যু দন্ড কার্যকর করার জনসম্মুখে সেলছেদ করানো হয়। কিন্তু সাম্প্রতিক উপযুক্ত আগ্রহী জল্লাদ পাওয়া যাচ্ছে না তাই সেলছেদ বন্ধ হতে পারে বলে দেশটির খবরে প্রকাশ করা হয়।

৪।বিশ্বের একমাত্র দেশ হিসাবে সৌদিতে নারীদের গাড়ি চালানো নিষেধ। এ দেশটিতে কখনো কোনো আইনে তা লেখা নেই। নারীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়া হয় না। তবে বর্তমানে তা কার্যকর হয়েছে।

৫। বিশ্বের সর্বোচ্চ বিল্ডিং নির্মান করছে সৌদি আরব। ২০১৮সালে কিংডম টাওয়ার নামে এই বিল্ডিংটি নির্মাণ হলে তা প্রায় মাটি থেকে এক কিলোমিটার উচু হবে।
৬। সৌদি আরবে রাজধানী রিয়াদে একটি উটের বাজার আছে সেখানে প্রায় প্রতিদিন ১০০ উট বিক্রি হয় ।

৭। এদেশের প্রায় ৮০ ভাগ শ্রমিকেই বিদেশী। দেশটিতে প্রায় ৮ মিলিয়ন শ্রমিক রয়েছে যাদের মধ্যে প্রায় ৬ মিলিয়ন বিদেশী। এই শ্রমিকের বড় অংশ তেলক্ষেত্র, উট সেবা কাজে নিয়োজিত ।

৮। বিশ্বের সবচেয়ে বড় তেল ক্ষেত্র রয়েছে সোদি আরবে । গায়ার তেলক্ষত্রে মজুদ রয়েছে প্রায় ৭৫ মিলিয়ন বিরিয়ল তেল। এই পরিমাণ তেল দিয়ে ৫০ লাখের বেশি অলিম্পিক সুইমিং পুল ভর্তি করা সম্ভব।

৯।সৌদি আরবের বার্ষিক সামরিক খরচ আফগানিস্থানে মোট যে ব্যায় এর তিনগুন । ২০১৩ সালে এর পরিমাণ ছিল ৬৭ বিলিয়ন । সামরিক খরচ এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র , চীন , রাশিয়ার পরে সোদি আরবের অবস্থান।

১০। সোদি আরবের ১০ টি অর্থনৈতিক শহর তৈরি করেছেন ।এই গুলো কেনিয়ার মোট জেডিযের সাড়ে তিনগুন পরিমান । এই জেডিযে ১.৩ মিলিয়ন মানুষের কর্মসংস্থান হবে মনে করা হচ্ছে।

মতামত

comments

Post Author: admin